খড়কুটোর গুচ্ছ কবিতা-কলমে বিকাশ দাস ( মুম্বাই)
খড়খুটো – এক গাছের সবুজ পাতা হলদেটে হতে হতে হঠাৎ করে না বলে একদিন দিব্যি ঝরে গেলো। নদীর জল উপচে দুপার ভাঙা স্রোত চাষার কাঁধে ক্ষতির বোঝার দিন দিয়ে গেলো। ঘরের কাঞ্চন কনে শহর বেশ ভালো জেনে ফল ফলন্ত গাঁয়ের মাটির গন্ধ ভুলে গেলো। কার সধবা আজ বিধবা হতেই শাঁখা পলা ভেঙে সিঁথির সিঁদুর মুছে […]
খড়খুটো – এক গাছের সবুজ পাতা হলদেটে হতে হতে হঠাৎ করে না বলে একদিন দিব্যি ঝরে গেলো। নদীর জল উপচে দুপার ভাঙা স্রোত চাষার কাঁধে ক্ষতির বোঝার দিন দিয়ে গেলো। ঘরের কাঞ্চন কনে শহর বেশ ভালো জেনে ফল ফলন্ত গাঁয়ের মাটির গন্ধ ভুলে গেলো। কার সধবা আজ বিধবা হতেই শাঁখা পলা ভেঙে সিঁথির সিঁদুর মুছে চোখের জল ফেলে গেলো। নারীর গর্ভে থাকে তার আগামী দিনের সাম্রাজ্য সংগ্রামের ভেতর সুখের রক্তঘাম ফেলে গেলো। খড়খুটো – দুই মাথার উপর আকাশ তার চেয়ে বেশি প্রয়োজন ঘরলগ্ন মাটি দেহ জুড়ানো দু’দন্ড শান্তি নামিয়ে ব্যক্তিগত বোঝার দায় পায়ের নিচে। মাথার উপর ঈশ্বর তার চেয়ে বেশি প্রয়োজন শ্রমলগ্ন হাত পেট জুড়ানো দু’মুঠো ভাত সারিয়ে রক্তজলের উৎস সময়ের উদ্ভিদে। মাথার উপর ঐশ্বর্য তার চেয়ে বেশি প্রয়োজন দেহলগ্ন বৃষ্টি ঢেঁকি জুড়ানো দু’ধামা ধান মাখিয়ে আপন্ন অধিকার সংঘাতের ঘামে। খড়কুটো – তিন কাল ঐশ্বর্যের ভিড় ছিলো তোমার প্রাসাদে সুখের ভেতর সব ঘর উচ্ছন্ন করে। করছিলো কালবেলার অহংকার তোমায় দ্রুত কাঙাল পাথর কাটা পাথরে । আজ তুমি নিঃস্ব সমস্ত উজার করে প্রাচুর্য্যের আলোর তীক্ষনতায় শুদ্ধতর অন্ধকার নিয়তির চৌকাঠ পার করে দুঃখের খাদে সুখ যেন সোনার নির্ভার ভালোবাসা একাকার করে ।
Previousগদ্যকবিতা-শব্দ লেখক পাঠক
Nextসু-সন্তান

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *